30 C
Kolkata

Deadbody Recover : বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার,চাঞ্চল্য বীরভূমে

নিজস্ব প্রতিবেদন :- কাজে যাওয়ার নাম করে বাড়ি থেকে বেরিয়ে ছিলেন তিনি। কিন্তু আর ফিরে আসেননি বাড়িতে। গোটা রাত কথা খোঁজাখুঁজি করা হয় পরিবারের তরফে। কিন্তু তারপরও মেরেনি খোঁজ।চিন্তাতেই অতিবাহিত হয় গোটা রাত।এরপর সাত সকালে বাড়ির সামনের একটি গাছ থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার হয় বিজেপি কর্মীর মৃতদেহ। ঘটনাকে কেন্দ্র করে রীতিমতো চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পরে ওই এলাকায়। ঘটনা বীরভূমের মল্লাপুরের বড় তুড়িগ্রামে।

জানা যাচ্ছে মৃত ওই ব্যক্তির নাম পূর্ণ চন্দ্র লাহা। ঘটনায় লেগেছে রাজনৈতিক রঙ। পরিবার ও স্থানীয় বাসিন্দাদের সূত্রে জানা যাচ্ছে মৃত পূর্ণচন্দ্র লাহা বিজেপি কর্মী হিসেবেই পরিচিত এলাকায়। ঘটনার পেছনে রাজনৈতিক যোগসাজশ থাকতে পারে বলেই প্রাথমিক অনুমান পরিবারের।আর এখানেই উঠছে প্রশ্ন। আদৌ কি আত্মহত্যা করেছেন ঐ ব্যক্তি নাকি রাজনৈতিক কারণে খুন করা হয়েছে তাকে?যদিও ইতিমধ্যেই মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে পুলিশ।শুরু হয়েছে তদন্ত।

আরও পড়ুন:  Interesting facts: জানেন ভারতের সবচেয়ে সুখী রাজ্য কোনটি ?

পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, পূর্ণ চন্দ্র লাহা দিনমজুরি, ছোটোখাটো কাজ করে সংসার চালাতেন। গত বিধানসভা নির্বাচনের আগে থেকে তিনি বিজেপি দলকে সমর্থন করা শুরু করেন। তবে সক্রিয়ভাবে রাজনীতি করেননি কখনই। সোমবার সন্ধ্যায় তিনি বাড়ি থেকে বার হন। আর ফেরেননি। অনেক খুঁজেও না পাওয়ায়, পরিবারের সদস্যরা মঙ্গলবার সকালে থানায় নিখোঁজ ডায়েরি করতে যাচ্ছিলেন। সেসময় প্রতিবেশীদের সূত্রেই তাঁরা খোঁজ পান, বাড়ির অদূরেই একটি গাছে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঝুলছে ওই ব্যক্তির দেহ।

মল্লারপুর থানার পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে। মৃতদেহ উদ্ধার করে রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। রহস্যমৃত্যুর কারণ খতিয়ে দেখছে মল্লারপুর থানার পুলিশ। রহস্যময় কারণ, এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কারোর নামে নির্দিষ্ট করে অভিযোগ দায়ের হয়নি। পরিবারের তরফে মেলেনি কোনও ‘ক্লু’। বাড়িতেও সেরকম কোনও ঝামেলা, দেনাপাওনা ছিল না বলে জানিয়েছেন পরিবারের সদস্যরা।

আরও পড়ুন:  Manoj Tiwary: 'কোনও মন্ত্রী-নেতা যেন আমার এলাকায় নাক না গলায়', মনোজের নিশানায় অরূপ রায়

তবে এই মৃত্যু নিয়ে রাজনৈতিক শোরগোল পড়েছে। বিজেপির বক্তব্য, কোনও রাজনৈতিক কারণেই খুন হয়ে থাকতে পারেন ওই ব্যক্তি। আসলে এখানে শাসকদল বিরোধীদের কন্ঠরোধ করছে। অন্যদিকে, তৃণমূলের বক্তব্য, বিরোধীরা পায়ের তলার মাটি হারাচ্ছে। গ্রাম্য বিবাদের ঘটনা থাকতে পারে, কিংবা আত্মঘাতীও হতে পারেন ওই ব্যক্তি।

Featured article

%d bloggers like this: