Friday, July 30, 2021
HomeEDITOR PICKSশতবর্ষে লজ্জার সাক্ষী ইস্টবেঙ্গল

শতবর্ষে লজ্জার সাক্ষী ইস্টবেঙ্গল

নিজস্ব সংবাদদাতা : এতদিন ময়দানে মোহনবাগান-ইস্টবেঙ্গল সমর্থকদের ঝগড়াঝাটি-মারপিট দেখেছে ফুটবলপ্রেমী বাঙালি। বুধবার লাল-হলুদ সমর্থকদেরই দুই গোষ্ঠী মারামারি করে ক্লাবের নাম ডোবালেন। লাল-হলুদের শতবর্ষে লজ্জার সাক্ষী থাকল লেসলি ক্লডিয়াস সরণি।এদিন দুপুর ১টা থেকে ক্লাব তাঁবুর সামনে জমায়েত করেন সমর্থকরা।

শ্রী সিমেন্টের সঙ্গে চুক্তিপত্র বিতর্কে কর্তাদের একাংশের উপর ক্ষুব্ধ সমর্থকরা। পাল্টা ক্লাবকর্তাদের সমর্থকরাও তাঁবুর সামনে জমায়েত হন। দুপক্ষই একে অপরের বিরুদ্ধে স্লোগান দিচ্ছিল, প্ল্যাকার্ড নিয়ে বিক্ষোভ দেখায়। ক্রমে তা বচসার রূপ নেয়। এরপর শুরু হয় মারামারি। ঝামেলা হতে পারে আশঙ্কায় আগেই মোতায়েন ছিল পুলিশ বাহিনী। মারামারি শুরু হতেই লাঠি হাতে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয় পুলিশ।সংঘর্ষে আহত হন বহু লাল-হলুদ সমর্থক।

এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক ময়দান এলাকায়। কয়েক জনের মাথা ফেটেছে সংঘর্ষে। গন্ডগোলের অভিযোগে কয়েকজন সমর্থককে গ্রেফতার করা হয়েছে। এদিন বিরোধী গোষ্ঠীর সমর্থকরা ক্লাবের সামনে জড়ো হয়ে গো-ব্যাক নিতু স্লোগান দিচ্ছিলেন। এরপরই দেবব্রত সরকারের গোষ্ঠীর সমর্থকরা বিরোধীদের উপর উপর চড়াও হয়। ঝামেলার সূত্রপাত তখনই।কদিন আগে ইস্টবেঙ্গলের কর্মসমিতির বৈঠকেও ক্লাবের কর্তারা ইনভেস্টরের চুক্তিপত্রে সই না করারই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।

গত কয়েকমাস ধরেই ইনভেস্টরদজের সঙ্গে বিবাদ চলছিল কর্তাদের। চুক্তির কিছু শর্ত ঘিরে বিবাদ। যার জেরেই ক্লাবকর্তাদের চুক্তিতে সই না করার জেরে ইনভেস্টরদের পিছিয়ে যাওয়ার খবর পাওয়ার পর থেকেই একদল ইস্টবেঙ্গল সমর্থক প্রবল ক্ষুব্ধ হয়েছেন। তাদের দাবি ‘মালিকানা আগলে রেখে ক্লাবের আইএসএল খেলাকে বিপাকে ফেলছেন কর্তারা।’

সেই দাবিতেই এদিন তারা ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের সামনে বিক্ষোভ দেখানোর কর্মসূচি নিয়েছিলেন। যে খবর পেয়ে হাজির হয়েছিলেন ইনভেস্টরদের চুক্তির বিপক্ষে ও কর্তাদের যুক্তির পক্ষে থাকা লাল-হলুদ সমর্থকরাও। কোভিড পরিস্থিতিতে এই ধরণের বিক্ষোভ করা যায় না। যার পর পুলিশের সঙ্গেও একপ্রস্থ বিবাদে জড়ান সমর্থকরা। যার পর দুই পক্ষের বিক্ষোভ কার্যত রণংদেহী চেহারা নেয়।

Most Popular